1. editor@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
  2. admin@madaripursomoy.com : মাদারীপুরসময় ডটকম : মাদারীপুরসময় ডটকম
  3. news@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
মাদারীপুরে উপবৃত্তির টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ - মাদারীপুরসময় ডটকম
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
কালকিনিতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত কালকিনিতে উপজেলা পাবলিক লাইব্রেরীর উদ্বোধন কালকিনিতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষে যুবক নিহত,আহত ৫ ডাসারে ব্রীজের সাথে সাঁকো দিয়ে ভোগান্তি লাঘবের চেষ্টা যোগ্যদের বাদ দিয়ে কালকিনি প্রেসক্লাবের ঘরোয়া কমিটি ঘোষণার অভিযোগ কালকিনিতে উপজেলা পরিষদের মাসিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত কালকিনি পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিকায়ন কালকিনিতে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এক মাদক ব্যবসায়ীকে সাজা প্রদান মাদারীপুরের বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস খালে,নিহত ১০ মাদারীপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ডিকেবিডিসি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত

মাদারীপুরে উপবৃত্তির টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১৩৬ বার পঠিত
madaripursomoy313
print news

মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি :

একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তির টাকা না পাওয়ায় ক্ষোভ বিরাজ করছে মাদারীপুর সদর উপজেলায় খোয়াজপুর সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজসহ বিভিন্ন কলেজে।

উপবৃত্তির টাকা দেওয়া হবে বলে কলেজ কর্মকর্তা পরিচয়ে এক প্রতারক চক্র ফাঁদে ফেলে তাদের বিকাশ ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রত্যন্ত এলাকার শিক্ষার্থীদের মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে সীমিত জ্ঞান ও তাদের সরলতার সুযোগে কথার মারপ্যাঁচে কৌশলে বিকাশ ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের পিন নম্বরের মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছে অনেক টাকা।

গত এক সপ্তাহে ধরে প্রত্যন্ত এলাকায় এ ধরনের অনেক ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে মাদারীপুর সদর উপজেলা খোয়াজপুর সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের অন্তত ২০ জন শিক্ষার্থীর প্রতারিত হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে।

এঘটনায় সিথী রানি নামের এক ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী রোববার (১৯ নভেম্বর) সকালে মাদারীপুর সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ নভেম্বর অজ্ঞাত এক ব্যক্তি কলেজের শিক্ষক পরিচয় দিয়ে বলে যে, উপবৃত্তির টাকার তালিকা থেকে আপনার নাম বাদ পড়ে গেছে। আপনাকে উপবৃত্তির টাকা দেওয়া হবে। আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সঠিক নয়। তাই একটি বিকাশ নাম্বার দেন। সেখানে আপনাকে উপবৃত্তির টাকা দেওয়া হবে। কিছুক্ষণ পরেই অজ্ঞাত একটি নাম্বার থেকে আমার মোবাইলে এসএমএস এসেছে ১০,৮০০ টাকার। এক পর্যায়ে তিনি আমার কাছে মোবাইলের পিন নাম্বার দিতে বলেন। তারপর আমি পিন নাম্বার দিলে আমার মোবাইলে থাকা ১৮ হাজার টাকা তার একাউন্টে চলে গেছে। কিছুক্ষণ পর একটি মেসেজ এসেছে যে আপনার উপবৃত্তির টাকা আপনার একাউন্টে দেওয়া হয়েছে। তার কিছুক্ষণ পরে আমি আমার একাউন্ট চেক করে দেখি আমার একাউন্টের টাকা তার ওখানে চলে গেছে। তারপর তাকে আমি ফোন দিলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা আসবে বলে মোবাইলে (০১৭০৮৪০২৮৭৬) নম্বর থেকে প্রতারক চক্রের কল আসে। বলা হয়, ‘হ্যালো আমি কলেজ থেকে বলছি। আমাদের এখানে সিকিউরিটি প্রবলেমের কারণে উপবৃত্তির টাকা দেওয়া যাচ্ছে না। আমরা আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেব। তার আগে দেখেন, আপনার অ্যাকাউন্টে উপবৃত্তির টাকা ঢুকেছে কিনা। যদি টাকা ঢুকে থাকে, তবে ওই টাকা আপনি তুলতে পারবেন না, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি আমাদের অফিস থেকে সিকিউরিটি পাসওয়ার্ড চেঞ্জ না করে নেবেন।’

তবে প্রতারণার পরপরই উল্লিখিত নম্বরটি বন্ধ করে দেয়। এ সময় ইসমাইল নামে একাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থী জানিয়েছে, ১৫ নভেম্বর সকালেই কলেজের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি তাকে ফোন করেছিল। এসময় সে সরল বিশ্বাসে ওই ব্যক্তির কথামতো সব তথ্য দিয়েছে। তথ্য না দিলে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাবে বলে তাকে ভয় দেখানো হচ্ছিল। এই ঘটনার কিছু সময়ের মধ্যেই অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা খোয়া যায় ওই শিক্ষার্থীর।

এব্যাপারে খোয়াজপুর সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের অধ্যক্ষ ফেরদাউসি বলেন, ‘কয়েকদিন যাবত অনেক শিক্ষার্থী আমার কাছে এসকল বিষয় নিয়ে আসছে। এবিষয়ে আমাদেরকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে একটি নোটিশ দিয়েছিল সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য। আমরা সকল শিক্ষার্থীদের এ বিষয়টি জানিয়েছিলাম। তারপরও তারা যে প্রতারণার শিকার হয়েছে, এতে আমাদের আর করার কিছু নাই।’

মাদারীপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, ‘কোনো শিক্ষার্থী যাতে প্রতারক চক্রের ফাঁদে পা না দেয়, সে ব্যাপারে আমরা শিক্ষকদের মেসেজ দিচ্ছি। শিক্ষকেরা দ্রুত বিষয়টি শিক্ষার্থীদের জানিয়ে দেবেন।’

এ ব্যাপারে মাদারীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এইচ এম সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘তাদের কাছে এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে এখনো কেউ আসেনি। বিকাশ গ্রাহকদের পিন নম্বর সংরক্ষণের ব্যাপারে অবশ্যই সচেতন হতে হবে।’

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Theme Customized By Shakil IT Park

এই ওয়েবসাইটের সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত