1. editor@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
  2. admin@madaripursomoy.com : মাদারীপুরসময় ডটকম : মাদারীপুরসময় ডটকম
  3. news@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
৪০ টাকার ডাব এখন দেড়শ! - মাদারীপুরসময় ডটকম
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
কালকিনিতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত কালকিনিতে উপজেলা পাবলিক লাইব্রেরীর উদ্বোধন কালকিনিতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষে যুবক নিহত,আহত ৫ ডাসারে ব্রীজের সাথে সাঁকো দিয়ে ভোগান্তি লাঘবের চেষ্টা যোগ্যদের বাদ দিয়ে কালকিনি প্রেসক্লাবের ঘরোয়া কমিটি ঘোষণার অভিযোগ কালকিনিতে উপজেলা পরিষদের মাসিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত কালকিনি পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিকায়ন কালকিনিতে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এক মাদক ব্যবসায়ীকে সাজা প্রদান মাদারীপুরের বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস খালে,নিহত ১০ মাদারীপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ডিকেবিডিসি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত

৪০ টাকার ডাব এখন দেড়শ!

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৩৮ বার পঠিত
5 9 23.madaripursomoy
print news

টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধিঃ

মাদারীপুরে আগে প্রতিটি ডাবের দাম ছিল ৩০ থেকে ৪০ টাকা। সিন্ডিকেটের কারণে সেই ডাব কিনতে ভোক্তাকে গুনতে হয় ১২০ থেকে ১৫০ টাকা। ডাবের বাজার নিয়ে চলছে ভয়াবহ কারসাজি!

চলমান ডেঙ্গু পরিস্থিতিকে পুঁজি করে যে যেভাবে পারছেন সেভাবেই বাড়াচ্ছেন ডাবের দাম। এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই মৌসুমি বিক্রেতারাও। চড়া দাম হাঁকাচ্ছেন তারাও।

আর স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, পুষ্টিগুণ বিবেচনায় ডাব খাবার স্যালাইনের বিকল্প মাত্র। কোনো জবাবদিহিতা না থাকায় বাজারের এ অবস্থা।

সদর হাসপাতালের সামনে গিয়ে দেখা গেছে, মাদারীপুরের পাঁচখোলা গ্রামের ইদ্রিস ফকির, সাত দিন আগে তার ভাই ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হলে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। চিকিৎসকের পরামর্শে তরল খাবার খেতে বলা হলে ডাবের খোঁজে আসেন হাসপাতালের সামনে। কিন্তু ডাবের দামের হাঁকডাকে হতবাক তিনি। একেকটি ডাব চাওয়া হচ্ছে ১২০ থেকে দেড়শ টাকা। এতে হতবাক অসহায় ইদ্রিস ফকির। পরে না কিনেই ফিরে যান তিনি। এমন অবস্থা অন্য রোগীর স্বজনদেরও।

এ পরিস্থিতিকে পুঁজি করে বেপরোয়া একদল ব্যবসায়ী হু হু করে বাড়িয়ে দিচ্ছেন ডাবের দাম।

ইদ্রিস ফকির বলেন, ডাব কেনার চেয়ে না কেনাই ভালো। যে ডাব আগে ৩০ থেকে ৪০ টাকায় কিনছি, সেই ডাব এখন ১২০ থেকে ১৫০ টাকা। খুবই দুঃখজনক বিষয়টা।

ডাবের দামে এমন ভয়াবহ সিন্ডিকেট চললে তা নিয়ন্ত্রণ করবে কে? সাধারণ মানুষ মনে করেন প্রশাসনের নজরদারি থাকলে স্বস্তি মিলত ক্রেতার। বিক্রেতাদের কারসাজি রুখতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার দাবি সাধারণ মানুষের।

তবে ডাব বিক্রেতা আমজাত হোসেন বলেন, মাদারীপুর জেলায় ডাব গাছ বেশি না থাকায় পার্শ্ববর্তী বরিশাল ও গৌরনদী, পিড়ারবাড়ী, শশীকর এলাকার বাগান মালিকদের কাছ থেকে প্রতি পিস ডাব ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরে কিনে আনি। এ কারণে বাগান অথবা আড়ত থেকে বেশি দামে ডাব কিনতে হচ্ছে। ফলে বেশি দামে বিক্রি করছি। ডাবের দাম কমা-বাড়া আমাদের হাতে নেই।

স্বাস্থ্যগুণ বিবেচনায় খাবার স্যালেইনের বিকল্প হিসেবে ডাবের পানি। তাই ক্রেতাদের অতিরিক্ত ডাব না কিনে খাবার স্যালাইন খাওয়ার পরামর্শ দিলেন সিভিল সার্জন ডা. মুনীর আহমদ খান। তিনি বলেন, ডাব স্যালাইনের বিকল্প মাত্র। এটার জন্য চড়া দামে কেনার কোনো অর্থ হয় না। এর চেয়ে খাবার স্যালাইন খেলেই বেটার হবে। তাতে মৌসুমি ডাব বিক্রেতাদের সঠিক জবাব দেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Theme Customized By Shakil IT Park

এই ওয়েবসাইটের সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত