1. editor@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
  2. admin@madaripursomoy.com : মাদারীপুরসময় ডটকম : মাদারীপুরসময় ডটকম
  3. news@madaripursomoy.com : Madaripur Somoy : Madaripur Somoy
বগুড়ায় নববধূকে ধর্ষণ মামলায় স্কুলশিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত - মাদারীপুরসময় ডটকম
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
কালকিনিতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত কালকিনিতে উপজেলা পাবলিক লাইব্রেরীর উদ্বোধন কালকিনিতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষে যুবক নিহত,আহত ৫ ডাসারে ব্রীজের সাথে সাঁকো দিয়ে ভোগান্তি লাঘবের চেষ্টা যোগ্যদের বাদ দিয়ে কালকিনি প্রেসক্লাবের ঘরোয়া কমিটি ঘোষণার অভিযোগ কালকিনিতে উপজেলা পরিষদের মাসিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত কালকিনি পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিকায়ন কালকিনিতে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এক মাদক ব্যবসায়ীকে সাজা প্রদান মাদারীপুরের বরযাত্রীবাহী মাইক্রোবাস খালে,নিহত ১০ মাদারীপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ডিকেবিডিসি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত

বগুড়ায় নববধূকে ধর্ষণ মামলায় স্কুলশিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০২৩
  • ১১৯ বার পঠিত
24 8 23.madaripursomoy 10
print news

মিরু হাসান, ষ্টাফ রিপোর্টারঃ

বগুড়ায় নববধূকে ধর্ষণে সহযোগীতার অভিযোগে করা মামলার আসামি হওয়ায় শিক্ষক মঞ্জুরুল হককে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার (২৩ আগস্ট) দুপুরের পর বগুড়া জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান চৌধুরীর সই করা সাময়িক বরখাস্ত পত্রটি হাতে পেয়েছেন স্কুলশিক্ষক মঞ্জুরুল হক।

মঞ্জুরুল হক ধুনট উপজেলার নলডাঙ্গা গ্রামের লোকমান হোসেনের ছেলে এবং নিমগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, বগুড়া শহরের মালগ্রাম উত্তরপাড়ার এক নারীকে (২৭) ১৭ মার্চ বিয়ে করেন শাজাহানপুর উপজেলার ফুলতলা গ্রামের মোবারক আলীর ছেলে এরশাদ আলী (৩৪)। বিয়ের পর মেয়েটি ১ এপ্রিল পর্যন্ত স্বামীর বাড়িতে ছিলেন। এ অবস্থায় বিয়ের একদিন পর ১৮ মার্চ মেয়েটির সঙ্গে গোপনে বিবাহবিচ্ছেদ (তালাক) করেন তার স্বামী এরশাদ আলী। কিন্তু তালাকের বিষয়টি গোপন রেখে এরশাদ আলী স্বামী ও স্ত্রী হিসেবে সহবস্থান করতে থাকেন। একপর্যায়ে ১ এপ্রিল মেয়েটিকে তালাকের কাগজ হাতে ধরিয়ে দিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন এরশাদ আলী।

এ ঘটনায় ৪ জুন মেয়েটি বাদি হয়ে এরশাদ আলী ও তার মা-বাবা সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে শাজাহানপুর থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। মামলার আর্জিতে নববধূকে ধর্ষণে সহযোগীতার অভিযোগ এনে স্কুলশিক্ষক মঞ্জুরুল হককে ৩ নম্বর আসামি করা হয়েছে। স্কুলশিক্ষক মঞ্জুরুল হক মামলার প্রধান আসামি এরশাদ আলীর ভগ্নিপতি। এ মামলায় মঞ্জুরুল হক ২০ জুলাই বগুড়া আদালতে হাজির হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠান। এরপর ৯ আগস্ট উচ্চ আদালতে থেকে মঞ্জুরুল হক জামিনে মুক্ত হন।

এ বিষয়ে স্কুলশিক্ষক মঞ্জুরুল হক বলেন, আত্মীয়তার সূত্রে ওই বিয়ের কাবিননামায় (নিবন্ধন) সই করেছিলাম। এ কারণে আমাকে মামলায় আসামি করা হয়েছে। আমি সাময়িক বরখাস্তপত্রটি হাতে পেয়েছি।ধুনট উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফজলুর রহমান বলেন, চাকরির নিয়ম অনুযায়ী মঞ্জুরুল হকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ১৬ আগস্ট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পত্র পাঠানো হয়েছিল। তিনি ২০ আগস্ট ওই শিক্ষকের সাময়িক বরখাস্তপত্রে সই করেছেন। বুধবার বরখাস্ত পত্রটি ওই শিক্ষকের হাতে পৌঁছানো হয়েছে। সাময়িক বরখাস্তকালিন নিয়ম মতো খোরাকি ভাতা পাবেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত
Theme Customized By Shakil IT Park

এই ওয়েবসাইটের সকল স্বত্ব madaripursomoy.com কর্তৃক সংরক্ষিত